উপমিত কর্মধারয় সমাসের উদাহরণ ও কর্মধারয় সমাস চেনার সহজ উপায়

সাধারণ গুণের উল্লেখ না করে উপমেয় পদের সাথে উপমান পদের যে সমাস হয়, তাকে উপমিত কর্মধারয় সমাস বলে। এক্ষেত্রে সাধারণ গুণটি ব্যাসবাক্য বা সমস্তপদে থাকে না, বরং অনুমান করে নেওয়া হয়। উপমিত কর্মধারয় সমাসে উপমেয় পদটি পূর্বে বসে।

উপমিত কর্মধারয় সমাসের উদাহরণ নিচে দেয়া হলঃ

এখানে বিশেষ্যের সাথে বিশেষ্যের তুলনা করা হয় এবং পূর্বপদ ও পরপদ উভয়পদই সবসময় বিশেষ্য হয়। উপমিত কর্মধারয় সমাসের কিছু উদাহরণ আমরা নিচে আলোচনা করেছি যেমনঃ

  • পুরুষ সিংহের ন্যায় = পুরুষসিংহ।
  • আঁখি পদ্মের ন্যায় = পদ্মআঁখি।
  • কর পল্লবের ন্যায় = করপল্লব।
  • লোচন পলাশের ন্যায় = পলাশলোচন।
  • অধর পল্লবের ন্যায় = অধরপল্লব।
  • কপি ফুলের ন্যায় = ফুলকপি।
  • পুরুষ ব্যাঘ্রের ন্যায় = পুরুষব্যাঘ্ৰ।
  • চরণ পদ্মের ন্যায় = চরণপদ্ম।
  • চরণ কমলের ন্যায় = চরণ-কমল।
  • সোনার ন্যায় মুখ = সোনামুখ।
  • মুখ চন্দ্রের ন্যায় = মুখচন্দ্ৰ (চন্দ্ৰমুখ)।
  • কণ্ঠ বজ্রের ন্যায় = বজ্রকণ্ঠ।
  • কালের ন্যায় বৈশাখী = কালবৈশাখী।

আরও জানুনঃ মধ্যপদলোপী কর্মধারয় সমাসের উদাহরণ ও চেনার সহজ উপায়

Leave a Comment